Pre-loader logo

শেখ রাসেলের ব্যাপক কর্মসূচি

শেখ রাসেলের ব্যাপক কর্মসূচি

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট রাতের অন্ধকারে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ পরিবারের আরও অনেককে। দেখতে দেখতে কেটে গেছে ৪০ বছর। কিন্তু সেই শোক আজও বয়ে বেড়াচ্ছে বাংলাদেশের জনগণ। বঙ্গবন্ধুকে যেদিন হত্যা করা হয়, সেদিনই বুলেট প্রাণ কেড়ে নেয় তার সর্বকনিষ্ঠ সন্তান শেখ রাসেলের। শেখ রাসেলের স্মৃতি ধরে রাখতে গঠন করা হয় শেখ রাসেল ক্রীড়া চক্র, যা এখন দেশের ক্রীড়াঙ্গনের শীর্ষস্থানীয় ক্লাব। ক্লাবটি ফুটবলের পাশাপাশি টেবিল টেনিসও খেলছে নিয়মিত। শোকের মাস এবং শেখ রাসেলের জন্মদিন উপলক্ষে নানা কর্মসূচি পালনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে ক্লাবটি। গতকাল দেশের শীর্ষ শিল্পপ্রতিষ্ঠান বসুন্ধরা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও শেখ রাসেল ক্রীড়া চক্রের চেয়ারম্যান সায়েম সোবহান আনভীরের সভাপতিত্বে বেশকিছু সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। ১৫ আগস্ট বনানীতে শেখ রাসেলসহ নিহতদের কবরে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করবে ক্লাব। ২১ আগস্ট ক্লাবটির চেয়ারম্যানসহ কর্মকর্তারা টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর মাজার জিয়ারত এবং গণভোজের ব্যবস্থা করবেন। ১৮ অক্টোবর শেখ রাসেলের জন্মদিন পালন করা হবে জমকালোভাবে এবং ক্লাবটির বার্ষিক সাধারণ সভার (এজিএম) তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে ১২ সেপ্টেম্বর। জাতীয় শোক দিবস সামনে রেখে ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া ভবনের সম্মেলন কক্ষে ক্লাবটির জরুরি সভায় সভাপতিত্ব করেন বসুন্ধরা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও শেখ রাসেল ক্রীড়া চক্রের চেয়ারম্যান সায়েম সোবহান আনভীর। সভায় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ক্লাবের ভাইস চেয়ারম্যান গোলাম রব্বানী হেলাল, ‘ডাইরেক্টর ইন চার্জ’ ইসমত জামিল আকন্দ, দুই সম্মানিত ক্লাব পরিচালক বাংলাদেশ প্রতিদিন সম্পাদক নঈম নিজাম ও কালের কণ্ঠ সম্পাদক ইমদাদুল হক মিলন এবং বাংলাদেশের প্রথম টেস্ট অধিনায়ক ও বিসিবি পরিচালক নাইমুর রহমান দুর্জয়, ক্লাবের পরিচালক সালেহ জামান সেলিমসহ কর্মকর্তারা। সভা শুরু হওয়ার আগে ১৫ আগস্টে নিহতদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়।
১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবসে ক্লাবের ব্যানারে ফুল দিয়ে বনানী কবরস্থানে শ্রদ্ধা জানাবেন ক্লাব কর্মকর্তারা। এ ছাড়া ঢাকার বেশ কয়েকটি এলাকায় প্ল্যাকার্ড ও ব্যানার টাঙানোর পরিকল্পনাও রয়েছে ক্লাবটির। ১৮ অক্টোবর শেখ রাসেলের জন্মদিন। দিনটি পালন করতে জাতীয় দলের সঙ্গে একটি প্রীতি ফুটবল ম্যাচ খেলা ছাড়াও শেখ রাসেলের নামে একটি টেবিল টেনিস প্রতিযোগিতার আয়োজনের বিষয়ে সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। তবে চূড়ান্ত হয়নি কোনো কিছুই। শেখ রাসেলের জন্মদিনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে প্রধান অতিথি করার বিষয়ে নীতিগত সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। ১২ সেপ্টেম্বর ক্লাবের চেয়ারম্যান সায়েম সোবহান আনভীরের বাসভবনে বার্ষিক সাধারণ সভা আয়োজনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

Copyright © 2021 Sayem Sobhan Anvir. All Rights Reserved.